ওয়ার্ডপ্রেস (Wordpress) কি? ওয়েবসাইট তৈরি টিউটোরিয়াল

ওয়ার্ডপ্রেস Wordpress হচ্ছে একটি CMS বা Content Management System যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন কোনোরকম কোডিং নলেজ ছাড়াই।

ওয়ার্ডপ্রেস (Wordpress) কি?

ওয়ার্ডপ্রেস হচ্ছে একটি CMS বা Content Management System যার মাধ্যমে আপনি আপনার ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন কোনোরকম কোডিং নলেজ ছাড়াই। ওয়ার্ডপ্রেস এখন পুরোবিশ্বে অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এবং সারাবিশ্বে যত ওয়েবসাইট আছে বর্তমানে তার প্রায় ৪০ শতাংশই ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে বানানো, এই সংখ্যাটাও দিন দিন বাড়ছে ব্যাপক হারে।

তবে ওয়ার্ডপ্রেস ছাড়াও আরও অনেক CMS Software রয়েছে যেমন joomla, drupal ইত্যাদি।

কেন ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করবেন?

আপনি কোডিং শিখেও একটি ওয়েবসাইট বানাতে পারবেন আবার ওয়ার্ডপ্রেস দিয়েও বানাতে পারবেন। তাহলে এদের মাঝে পার্থক্য কি?

পার্থক্য হলো, আপনি যদি কোডিং করে ওয়েবসাইট বানান তাহলে সেটা বানাতে ১ থেকে ৩ মাস লেগে যাবে তাছাড়া খুব বেশি এডিট বা কাস্টমাইজ করতে পারবেন না আপনার ওয়েবসাইট। কারন হলো বার বার আপনাকে কোডিং করে এসব চেঞ্জ করতে হবে এবং এটা খুবই কঠিন এবং কষ্টের হবে। আপনি যদি প্রফেশনাল না হন তাহলে কোডিং এ নানা রকমের ভুল হবে এবং আপনার ওয়েবসাইট নষ্টও হয়ে যেতে পারে। তাছাড়া ওয়েবসাইট ডিজাইন আর ডেভলপমেন্ট শিখতে শিখতেই আপনার চলে যাবে ৫ মাস, এরপর ক্লায়েন্ট এর প্রজেক্ট পেতে আরো ১ বছর খাটতে হবে আপনাকে। 

অন্যদিকে যদি আপনি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে বানান তাহলে যতবার ইচ্ছা যেভাবে ইচ্ছা আপনি ওয়েবসাইট কে এডিট করতে পারবেন এবং এক থিম পছন্দ না হলে অন্য থিম ইন্সটল করতে পারবেন। যতবার ইচ্ছা চেঞ্জ করতে পারবেন আপনার ওয়েবসাইট। আর কাস্টমাইজ করাটাও অনেক সহজ , শুধু ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ করে করেই সাজিয়ে ফেলতে পারবেন আপনার ওয়েবসাইট। ওয়েবসাইট বানাতে সময় লাগবে মাত্র ১ দিন আর ওয়ার্ডপ্রেস এর সব কিছু শিখতে মাত্র ১ মাস সময়ই যথেষ্ট। যারা ইতোমধ্যে ব্লগারে তাদের ওয়েবসাইট বানিয়েছেন তাদের জন্য ওয়ার্ডপ্রেসে কাজ করা অনেকটাই সহজ হয়ে যাবে কারন সবকিছু প্রায় অনেকটাই একই রকম তবে ওয়ার্ডপ্রেস আরো সহজ আর অনেক বেশী কাস্টমাইজেবল। 

তবে আপনি যদি কোডিং করে মানে HTML বা CSS ব্যবহার করে ওয়েবসাইট বানিয়ে থাকেন অলরেডি তাহলেও আপনি ওয়ার্ডপ্রেসে শিফট হতে পারবেন, তাই চিন্তার কোনো কারন নেই। ব্লগার সাইটকেও ওয়ার্ডপ্রেসে শিফট করাতে পারবেন চাইলে।

তাছাড়া ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে প্রায় সকল ধরনের ওয়েবসাইটই বানানো সম্ভব, তাই দিন দিন অনেকেই ওয়ার্ডপ্রেস এর দিকে ঝুকছেন। মার্কেটপ্লেস গুলোতেও ওয়ার্ডপ্রেস এর অনেক অনেক চাহিদা আর কাজ পাওয়া যায়।


আপনার ওয়েবসাইটের জন্য সবচেয়ে সেরা মানের ডোমেইন হোস্টিং কিনতে ভিজিট করুন exonhost.com , এখান থেকে আপনি বিকাশের মাধ্যমেও ডোমেইন হোস্টিং কিনতে পারবেন।


কারা ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে ?

মূলত যারা ব্লগিং করে এবং নিজের ব্যবসার জন্য ছোটখাটো একটি ওয়েবসাইট বানাতে চান তাদের কাছে ওয়ার্ডপ্রেস প্রথম পছন্দ। এর প্রধান কারন হলো ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে মাত্র এক দিনেই আপনি চাইলে ওয়েবসাইট বানিয়ে ফেলতে পারবেন এবং আপনার খরচও অনেকটাই কমে যাবে। তাছাড়া খুব সহজেই ড্র্যাগ এন্ড ড্রপ করে সবকিছু সাজিয়ে ফেলতে পারবেন।

আজকাল ব্লগিং পেশাটা অনেক জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। এখন অনেকেই তাদের ব্লগসাইট খুলে তাতে আর্টিকেল পোস্ট করিয়ে প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা ইনকাম করছেন। কেউ কেউ আবার লাখ টাকার উপর ইনকাম করছেন প্রতি মাসে শুধুমাত্র ব্লগিং করেই। এই সেক্টরে তাই অনেক ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। মার্কেটপ্লেসেও আজকাল অনেক অনেক কাজ পাওয়া যায় ওয়ার্ডপ্রেসের। যারা অল্প শিক্ষিত অথবা কম্পিউটার সম্পর্কে তেমন কোনো জ্ঞান নেই তাদের জন্য ওয়ার্ডপ্রেস হতে পারে ব্লগিং ক্যারিয়ার গঠনের চাবিকাঠি।

কাওকে দিয়ে ওয়েবসাইট  বানাতে চাইলে কেমন খরচ পরবে?

যদি আপনি কাওকে দিয়ে কোডিং করিয়ে ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে আপনাকে গুনতে হবে প্রায় ৫০০ ডলার এর মত বা ৪০,০০০ টাকার চেয়ে বেশী টাকা। এবং ওয়েবসাইট পরবর্তিতে এডিট করানোর জন্যেও আপনাকে লোক নিয়োগ করতে হবে ভালো স্যালারি দিয়ে।

আর যদি ওয়ার্ডপ্রেস এর মাধ্যমে কাওকে দিয়ে বানিয়ে নেন তাহলে খরচ পরবে ১০০- ১৫০ ডলারের মধ্যে। এখানে একটি  প্রিমিয়াম ওয়ার্ডপ্রেস এর থিম কিনতে আপনার ২০-১০০ ডলার খরচ হবে আর বাকিটা দিতে হবে আপনার ওয়েবসাইট সেটাপ করিয়ে দেয়ার জন্য। এক্ষেত্রে লোক নিয়োগ না করিয়ে নিজে একটু শিখে নিলেই পারবেন টুকটাক এডিট করতে, এছাড়া অল্প স্যালারিতে একজন লোক রেখেও দিতে পারেন।

এবার আসছি অন্য কথায়, আপনি যদি কোনো প্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট, অথবা ফেসবুকের মত কোনো ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে আপনাকে কোডিং করিয়েই ওয়েবসাইট বানাতে হবে। তার কারন, ওয়ার্ডপ্রেসের থিম সবাই কিনতে পারে এবং এতে করে আপনার সার্ভিসের জন্য বানানো ওয়েবসাইট টি অতটা ইউনিক হবে না বা অন্যদের থেকে তেমন একটা আলাদা হবে না। তাই এসব ওয়েবসাইট কোডিং করিয়ে নিজের মন মত ডিজাইন করিয়ে নিলে ভালো।

আর যদি আপনি আপনার নিজের জন্য কোনো ওয়েবসাইট বানাতে চান, অথবা আপনার এফিলিয়েট মার্কেটিং শুরু করার জন্য কোনো ওয়েবসাইট বানাতে চান তাহলে আপনার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস হবে বেস্ট চয়েস।

ওয়ার্ডপ্রেস এর সুবিধা

১. ওয়ার্ডপ্রেস একটি ফ্রি এপ বা ওয়েবসাইট তাই আপনাকে কোনো টাকা দিতে হবেনা।

২. যেহেতু এটি একটি অনলাইন সাইট তাই আপনি যেকোনো যায়গা থেকেই এটি এক্সেস করতে পারবেন এবং কাজ করতে পারবেন।

৩. ওয়ার্ডপ্রেস পুরোপুরি SEO Friendly, তার অর্থ হচ্ছে গুগলে আপনার সাইটটি খুব সহজেই র‍্যাংক করাতে পারবেন এবং এতে করে আপনার ওয়েবসাইটে হাজার হাজার ভিজিটর আসবে।

৪. ওয়ার্ডপ্রেস অনেক বেশী সিকিউরড কারন কোটি কোটি ওয়েবমাস্টার রা এটি ব্যবহার করছে, এর ফলে ওয়ার্ডপ্রেস রেগুলার তাদের সিকিউরিটি কে আপডেট রাখে।

৫. শুধুমাত্র ব্লগিং ওয়েবসাইট নয়, আপনি চাইলে এর মাধ্যমে আরও নানা রকমের ওয়েবসাইট বানিয়ে ফেলতে পারবেন। যেমন facebook, ecommerce ওয়েবসাইট ইত্যাদি।

৬. হাজার ধরনের ফ্রি থিম আর প্লাগিন পেয়ে যাবেন এতে, যার মাধ্যমে খুব সহজেই আপনি নিজের ওয়েবসাইট কে আরও সুন্দর ও এডভান্সড করে তুলতে পারবেন।

৭. এসব থিম আর প্লাগিন ইন্সটল করাও অনেক সহজ আর চাইলেই আপনি এগুলোকে কাস্টমাইজ করতে পারবেন।

৮. ওয়ার্ডপ্রেস অনেক বেশী SEO friendly, যার মানে আপনি আপনার ওয়েবসাইটকে খুব সহজেই কিন্তু র‍্যাংক করাতে পারবেন বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিনে।

৯. ওয়ার্ডপ্রেস শিখে ফেলাটাও খুবই সহজ এবং খুব কম সময়েই আপনি ওয়ার্ডপ্রেস শিখে ফেলতে পারবেন। তবে এতে এডভান্স হবার জন্য আপনাকে লেগে থাকতে হবে আর কোনো ওয়েবমাস্টার বা ভালো পেইড কোর্স কিনে নিলে আরো ভালোভাবে শিখতে পারবেন সবকিছু।

১০. বিভিন্ন মার্কেটপ্লেস যেমন upwork, freelancer, fiverr এ ওয়ার্ডপ্রেস রিলেটেড অসংখ্য কাজ পাওয়া যায়। আপনি চাইলে অন্যদের ওয়েবসাইট বানিয়ে দিয়েও অনেক ভালো মানের ইনকাম করতে পারবেন। শুধুমাত্র ফ্রিল্যান্সিং করেও আজকাল অনেকে লাখ লাখ ডলার ইনকাম করছেন, তাহলে আপনি কেন পারবেন না ?

ওয়ার্ডপ্রেস প্লাগিন – plugin কি?

ওয়ার্ডপ্রেসে বিভিন্ন প্লাগিন ইন্সটল করে আপনি আপনার কাজ কে আরও সহজ করে তুলতে পারবেন। প্লাগিন মূলত ছোট ছোট এপ্লিকেশন বা সফটওয়্যার যা আপনার কাজকে আরও সহজ করে তুলবে। যেমন আপনি সিকিউরিটির জন্য একটি প্লাগিন ইন্সটল করতে পারেন যেটি আপনার ওয়েবসাইট কে আরও সিকিউরড করে তুলবে। আবার আপনার ওয়েবসাইট এর এনালিটিক্স দেখার জন্যেও আপনি বিভিন্ন প্লাগিন ইন্সটল করতে পারেন।

কি কি লাগবে একটি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট বানাতে?

আপনাকে শুধুমাত্র একটি ডোমেইন কিনতে হবে আপনার ওয়েবসাইট এর জন্য আর আপনার ওয়েবসাইট কে হোস্ট করার জন্য একটি হোস্টিং লাগবে। ব্যাস এটুকুই, ডোমেইন আর হোস্টিং কিনতে আপনার খরচ পরবে মাত্র ২ থেকে ৩ হাজার টাকা। এটি প্রতি বছর একবার করে আপনাকে পে করতে হবে। অন্য কাওকে দিয়ে ওয়েবসাইট না বানিয়ে যদি নিজে নিজে একটু প্র্যাকটিস করেন তাহলে কিন্তু নিজেই শিখে যাবেন সবকিছু আর অন্যের উপর ভরসা করেও থাকতে হবে না।

লেখাটি পড়ে উপকৃত হলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করবেন আর আপনার মতামত অথবা কোনো প্রশ্ন থাকলে তা জানান।

এছাড়া ডোমেইন, হোস্টিং, ওয়েবসাইট সেটাপ সম্পর্কে জানতে আমাদের ওয়েবসাইটে ভিজিট করুন। ধন্যবাদ